English Version

শিক্ষামন্ত্রীর যেসব যুক্তি খণ্ডন করতে পারেননি ননএমপিও শিক্ষক নেতারা

নিউজ ডেস্ক:: শিক্ষামন্ত্রী ডা: দীপু মনির কয়েকটি প্রশ্নের যৌক্তিক জবাব দিতে পারেননি ননএমপিও শিক্ষক নেতারা। গড়পড়তা বলে গেছেন সবাইকে এমপিও না দিলে না খেয়ে মারা যাবেন, স্ত্রী-সন্তানের কাছে মুখ দেখাতে পারেন না ইত্যাদি।

রোববার (২০ অক্টোবর) রাত আটটার পর রাজধানীর সেগুন বাগিচার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে ননএমপিও শিক্ষক নেতাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শুরুতেই বক্তব্য রাখেন ননএমপিও শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার।

রাজনৈতিক বিবেচনায় কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়নি মর্মে একটি অগ্রহণযোগ্য বাংলা দৈনিক পত্রিকার একটি সংবাদ শিক্ষামন্ত্রীর নজরে আনেন অপর একজন শিক্ষক নেতা। এর উত্তরে মন্ত্রী বলেন, রাজনৈতিক বিবেচনায় কোনো প্রতিষ্ঠান বাদ পড়েনি। ওই পত্রিকার রিপোটের তথ্য সত্য নয়, সত্য নয়, সত্য নয়।

এ সময় কয়েকজন নেতা মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, ‘আমরা ১৮/২০ বছর ধরে এমপিও পাইনা।’ এর জবাবে মন্ত্রী বলেন, আপনারা কেন ওই সময়ে পাননি? কোনো জবাব দিতে পারেননি। বৈঠকে উপস্থিত একটি বিএম কলেজের অধ্যক্ষ মন্ত্রীর কাছে জানতে চান এমপিও নীতিমালায়র কয়েকটি ধারা সম্পর্কে। যা পুরোপুরি অপ্রাসঙ্গিক।

শিক্ষকদের উদেশ্যে মন্ত্রী বলেন, নীতিমালার বাইরে একটি প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্ত করা যাবে না। জাতীয় সংসদে আমার সাড়ে তিন শ সহকর্মীর কাছেও আমাকে জবাবদিহি করতে হবে। বিদ্যমান নীতিমালায় কিছু পরিবর্তন দরকার বলেও মনে করেন মন্ত্রী। মামলা মোকদ্দমা করলে পুরো প্রক্রিয়া আটকে যাবে বলেও নেতাদের জানান মন্ত্রী।

বৈঠক শেষে কয়েকজন শিক্ষক নেতা বলেন, আমাদের নেতারা ব্যক্তিত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছেন। যুক্তির চেয়ে আবেগী ছিলেন। আলোচনার মাধ্যমে কোনও কিছু আদায় করার যোগ্যতার ঘাটতি ছিলো চোখে পড়ার মতো।

 

সর্বশেষ সংবাদ